Ithelpbd.com is Bangla Online Tech Community website.

এস.ই.ও ধারাবাহিক টিউটোরিয়াল : লেকচার-০২

113 views
if you like please share this postShare on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0

SEO এর বাংলা ধারাবাহিক টিউটোরিয়ালের দ্বিতীয় লেকচারে সবাইকে স্বাগতম। আজকের টিউটোরিয়ালে আমি বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনসমূহের জন্য গাইডলাইন নিয়ে আলোচনা করব।

 

বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনের জন্য কতিপয় গাইডলাইন

 

সাধারণত যে সমস্ত সার্চ ইঞ্জিনসমূহ ব্রাউজারদের কাছে সবচাইতে বেশী পরিচিত এবং ব্যবহৃত হয়ে থাকে তার মধ্যে তিনটি হলো গুগল, ইয়াহু এবং বিংক সার্চ ইঞ্জিন। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বিভিন্ন ওয়েব সাইটসমূহকে ইন্ডেক্সিং করার ক্ষেত্রে যে জটিল অ্যালগরিদম ব্যবহার করে তা প্রথম দৃষ্টিতে বেশ জটিল এবং এ কারণেই এই মেজর সার্চ ইঞ্জিনগুলো ওয়েব মাস্টারদের জন্য এদের নিজেদের পক্ষ থেকে এখানে সাফল্য পাবার জন্য সামান্য কিছু গাইডলাইন প্রদান করে। মেজর তিনটি ওয়েব সার্চ ইঞ্জিন তথা গুগল, ইয়াহু এবং বিংক সম্পর্কিত এ ধরনের কিছু তথ্য এখানে তালিকাভুক্ত করা হলো।

 

Yahoo সংক্রান্ত SEO তথ্য : ওয়েব মাস্টার গাইডলাইন

 

ইয়াহুর সার্চ রেজাল্ট পেজে একটি ওয়েব সাইটের স্থান পাওয়া এবং এর অবস্থান বা Ranking এর জন্য বিভিন্ন বিষয় প্রভাবক হিসেবে কার্যকর থাকে। এদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রভাবক হলো :

  • টার্গেট সাইটের সাথে কতগুলো গুরুত্বপূর্ণ সাইটের লিংক আছে
  • টার্গেট সাইটের পেজ কন্টেন্টটি কেমন
  • এর কন্টেন্টসমূহ নিয়মিত আপডেট হয় কিনা
  • নতুন প্রোডাক্ট ভার্সনের টেস্টিং হয় কিনা
  • অতিরিক্ত সাইটসমূহ ডিসকভারকরণ
  • সার্চ অ্যালগরিদমের পরিবর্তনসমূহ এবং এর সাথে আরও অন্যান্য ফ্যাক্টর

 

Bing সংক্রান্ত SEO তথ্য : ওয়েব মাস্টার গাইডলাইন

 

মাইক্রোসফটের তৈরি বিংক সার্চ ইঞ্জিন এর সার্চ রেজাল্ট পেজে বিভিন্ন ওয়েব সাইটের উন্নত অবস্থান নিশ্চিতকরণের জন্য নিম্নোক্ত সুপারিশসমূহ প্রদান করে। যথা :

  • টার্গেট সাইটে থাকা তথ্যসমূহ সার্চ করার জন্য ইউজার যেসব সার্চ কুয়ারী ব্যবহার করতে পারে সেই সমস্ত শব্দাবলিকে সাইটের
    ভিজিবল পেজের টেক্সট অন্তর্ভূক্ত করা।
  • প্রত্যেক পেজকে একটি সঠিক সাইজের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা। বিংক সাধারণত একটি পেজে একটি টপিক রাখাকে সুপারিশ করে। যে
    সমস্ত পেজে কোন ইমেজ নেই সেগুলোকে 150 কেবি সাইজের মধ্যে রাখা উচিৎ।
  • প্রত্যেক পেজ যেন অন্তত একটি স্ট্যাটিক লিংক দ্বারা এক্সেসেবল হতে পারে তা নিশ্চিত করা।
  • যে সমস্ত টেক্সটকে ইনডেক্সভুক্ত করতে চাওয়া হবে সেগুলোকে ইমেজের ভেতর রাখা যাবে না। যেমন, যদি কেউ তার কোম্পানীর নাম এবং ঠিকানা ইনডেক্সভুক্ত করতে চায় তবে তা যেন কোম্পানী লোগোর ভেতর প্রদর্শিত না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

 

Google সংক্রান্ত SEO তথ্য : ওয়েব মাস্টার গাইডলাইন

 

গুগল তাদের সার্চ ইঞ্জিনে কোন ওয়েব পেজকে ভালো Ranking পাবার জন্য নিম্নোক্ত পরামর্শসমূহ প্রদান করে।

  • পেজসমূহকে প্রাথমিকভাবে ইউজারের জন্য তৈরি করতে হবে, সার্চ ইঞ্জিনের জন্য নয়। ইউজারের জন্য এক রকম কন্টেন্ট এবং সার্চ ইঞ্জিনের জন্য এক রকম কন্টেন্ট প্রদর্শন করানোর কাজটি গুগল সর্বদা ওয়েব মাস্টারদের করার জন্য নিরুৎসাহিত করে।
  • সাইটকে একটি পরিষ্কার হায়ারারকি ও টেক্সট লিংক সমৃদ্ধ করে তৈরি করতে হবে। প্রতিটি পেজে যেন অন্তত একটি স্ট্যাটিক লিংক
    দ্বারা পৌঁছাবার ব্যবস্থা থাকে।
  • সর্বদা কার্যকরী, তথ্যবহুল ওয়েব পেজ তৈরি করতে হবে এবং পেজসমূহ এমনভাবে রচনা করতে হবে যেন তা সাইটটির কন্টেন্টকে পরিষ্কার এবং যথাযথভাবে বিবৃত করতে পারে। সাইটের টাইটেল এলিমেন্ট এবং অল্টার এট্রিবিউট যেন বর্ণনামূলক ও সঠিক হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।
  • পেজে লিংকের সংখ্যা রিজেনেবল রাখতে হবে (অবশ্যই ১০০টির কম)।

 

ইউজার ও সার্চ ইঞ্জিনের মধ্যে ইন্টারঅ্যাকশন

 

ইন্টারনেটে কোন সাইটকে জনপ্রিয় করতে তথা অনলাইন SEO এবং সার্চ Ranking কে ঘিরে মার্কেটিং এর স্ট্র্যাটেজি তৈরিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ এলিমেন্ট হলো এর অডিয়েন্স সম্পর্কে ধারণা নেয়া অর্থাৎ অনলাইনে কোন সাইটের কন্টেন্ট সংশ্লিষ্ট গড়পড়তা সার্চকারী সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা গেলে সাইটটি SEO ফ্রেন্ডলি করে তোলার কাজটি বেশ সহজ হয়ে ওঠে। যখন এই প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন হবে তখন সার্চ ইঞ্জিন এবং সাইটসমূহ যা প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে তাদের উভয়ের জন্যই একটি পজিটিভ অভিজ্ঞতা জন্ম নেবে। পৃথিবীতে পরিসংখ্যান বলছে প্রতিদিন সার্চ করার মাধ্যমে ওয়েব সাইট ভিজিটকারীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। একটি জরীপ অনুসারে দেখা যায় শতকরা নব্বই ভাগ অনলাইন মধ্যে শতকরা বেয়াল্লিশ ভাগ পুরুষ এবং শতকরা ঊনচল্লিশ ভাগ মহিলা প্রতিদিনই সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করছেন এবং উভয় গ্রুপের শতকরা পঁচাশি জন সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে তাদের কাঙ্ক্ষিত তথ্য খুঁজে পেতে সক্ষম তা স্বীকার করেন।

সুতরাং এটা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে অনলাইন ইউজারদের সাথে সার্চ ইঞ্জিনের ইন্টারঅ্যাকশনটি কিভাবে ঘটে থাকে। যদিও সার্চ ইঞ্জিনসমূহ বহু বছর থেকেই ব্যবহার হচ্ছে তবু এদের প্রাথমিক সার্চ করার পদ্ধতিটি বৃহৎ দৃষ্টে প্রায় একই রকম রয়ে গেছে। নিচে বিভিন্ন অনলাইন ইউজারের সার্চ করার কমন পদ্ধতিটি ক্রমানুসারে বর্ণিত হলো।

 

  1. কোন সুনির্দিষ্ট উত্তর, সমাধান বা তথ্যের প্রয়োজনীয়তা অনুভব সংক্রান্ত অভিঞ্জতা।
  2. সেই প্রয়োজনীয়তাকে একগুচ্ছ শব্দ বা ফ্রেজে পরিণত করা যা সাধারণত সার্চ কুয়ারী হিসেবে পরিচিত।
  3. সেই সার্চ কুয়ারীর সাহায্যে সার্চ ইঞ্জিনকে এক্সিকিউটকরণ।
  4. তথ্য ম্যাচ করার জন্য সার্চ রেজাল্টকে ব্রাউজকরণ।
  5. কোন একটি সম্ভাব্য ম্যাচকৃত রেজাল্টের উপর ক্লিককরণ।
  6. সেই সাইটে বা তাতে সংশ্লিষ্ট লিংকসমূহে সলিউশনের জন্য স্ক্যানকরণ।
  7. বর্ণিত স্থানগুলোতে তথ্য সম্পর্কে সন্তুষ্ট না হলে পুনরায় সার্চ রেজাল্টে ফিরে আসা এবং সার্চ রেজাল্টের ভিন্ন কোন লিংককে পুনরায় পরীক্ষাকরণ।
  8. পূর্ববর্তী সার্চ কুয়ারীকে রিফাইন করে একটি নতুন সার্চ অপারেশন পরিচালনা করা।

 

আপনার মন্তব্য আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূন । তাই আপনার মতামত দিন !!

if you like please share this postShare on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0