Ithelpbd.com is Bangla Online Tech Community website.

কম্পিউটিং

হার্ডডিস্কের যত্ন নেওয়ার জন্য $35 মূল্যের সেরা সফটওয়ারটি এক্টিভেটর সহ ডাউনলোড করে নিন!

হার্ডডিস্কের যত্ন নেওয়ার জন্য $35 মূল্যের সেরা সফটওয়ারটি এক্টিভেটর সহ ডাউনলোড করে নিন!

কম্পিউটিং, টিউটোরিয়াল, টিপস এন্ড ট্রিকস, পিসি স্ফটয়ার, হার্ডওয়্যার
কম্পিউটারের হার্ড ডিস্কে আমরা নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ডাটা এবং ফাইল সংরক্ষণ করি।তাই এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি হার্ডওয়্যার। হার্ড ডিস্কে আমরা এমন সব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রাখি যা হয়তো আমাদের অতীব জরুরী।কিন্তু কোনোভাবে যদি পিসির এই অংশ অনাকাঙ্কিতভাবে নষ্ট হয়ে যায় তাহলে কী ঘটবে? কী ঘটবে না ঘটবে সটা আপনারাই অনুধাবন করতে পারবেন।তবে আপনারা যাতে এই ধরনের বিপদে না পড়েন মূলত তার জন্যই আমার এই টিউন। এ ধরনের বিপদ থেকে বাঁচার জন্য আজ আপনাদের সাথে একটি অসাধারণ এওয়ার্ড উইনিং সফটওয়্যার শেয়ার করছি। হার্ড ডিস্ক সেন্সিনেল """"""""""""""""""""""" হার্ড ডিস্কের সকল ধরনের তথ্যই আপনি এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে পাবেন।তাছাড়া হার্ড ডিস্কের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ, যত্ন-আতি করতে হার্ড ডিস্ক সেন্সিনেলের বিকল্প নেই।তবে দামও কিন্তু কম নয়। 35$। দাড়ান...দাড়ান... কোথায় যাচ্ছেন? আমি আপনাদেরকে সফটওয়্যারটি ফ্রি দেব। কেন হার্
৬৪-বিট কম্পিউটিং কি? আপনার জন্য সত্যিই কতটা গুরুত্বপূর্ণ? ৬৪-বিট মানেই কি ৩২-বিট থেকে দ্বিগুণ কম্পিউটিং? – মেগাটিউন!

৬৪-বিট কম্পিউটিং কি? আপনার জন্য সত্যিই কতটা গুরুত্বপূর্ণ? ৬৪-বিট মানেই কি ৩২-বিট থেকে দ্বিগুণ কম্পিউটিং? – মেগাটিউন!

কম্পিউটিং, জেনে নিন, টেক-নিউজ, প্রতিবেদন
আজকের সকল মডার্ন কম্পিউটার গুলো ৬৪-বিট কম্পিউটিং সিস্টেম ব্যবহার করে; তার মানে কিন্তু এই নয় যে শুধু নাম্বার বড় হওয়ার কারণে এটি ৩২-বিট কম্পিউটিং থেকে দ্বিগুণ কাজ করতে পারে। এই “বিট” টার্মটি শুধু প্রসেসরের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়ে থাকে—কিন্তু একটি কম্পিউটারের কর্মদক্ষতা যাচায় করার জন্য এর সিপিইউ ক্লক স্পীড, মেমোরি, বিভিন্ন ড্রাইভার ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাহলে ৬৪-বিট আসলে কি? এবং সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো এটি আপনার জন্য কতটা গুরুত্ব রাখে? চলুন বিস্তারিত করে জেনে নেওয়া যাক… ৬৪-বিট কম্পিউটিং কি? কম্পিউটার সাধারনত কোন তথ্যকে বিট আকারে প্রসেস করে। বিট সাধারনত একটি বাইনারি ক্রম যা, জিরো অথবা ওয়ান হতে পারে। কম্পিউটার প্রসেসরে একসাথে অনেক ট্র্যানজিস্টর লাগানো থাকে, যেগুলো অন বা অফ করে জিরো বা ওয়ান সংরক্ষিত বা প্রসেস করানো হয়। অর্থাৎ টেকনিক্যালি আপনার কাছে যতোবেশি জিরো বা ওয়ান বা
সাবধান আপনার কম্পিউটারকেও Ransomware ভাইরাসটি আক্রমণ করতে পারে। যার ফলে আপানাকে গুনতে হবে ৩০০ ডলার!!

সাবধান আপনার কম্পিউটারকেও Ransomware ভাইরাসটি আক্রমণ করতে পারে। যার ফলে আপানাকে গুনতে হবে ৩০০ ডলার!!

অ্যান্টিভাইরাস, ইন্টারনেট, উইন্ডোস, কম্পিউটিং, জেনে নিন, হ্যাকিং
কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালই আছেন। এখন আমাদের ভাল থাকা না  থাকাটা নির্ভর করে আমাদের কম্পিউটার ভাল আছে কিনা তার উপর। যদি কম্পিউটারের কিছু হয় তাইলে তো কথাই নেই মুড এর বারটা কি তেরটা পর্যন্ত বেজে যায় তাই আমরা সবসময় চেষ্টা করি যাতে আমাদের কম্পিউটারটি সবসময় ঠিকভাবে থাকে। কিন্তু অনেক সতর্কতার পরেও ভাইরাস ম্যালওয়ার আক্রমণ করেই থাকে। আমারা কম্পিউটার ভাইরাস বলতে বুঝি এমন সব প্রোগ্রাম যা কম্পিউটারের সাধারন কাজগুলোকে ঠিকভাবে করতে দেয় না। ইউজার এর বিভিন্ন সমস্যার কারণ হয়। কিন্তু আজকে আমি নতুন ধরনের ম্যালওয়ার নিয়ে কথা বলব। যারা ফেসবুক বা বিভিন্ন টেক ফোরামগুলোতে খোজ খবর রাখেন তারা হয়ত বুঝতে পারছেন আমি কি নিয়ে কথা বলতে যাচ্ছি। হা আমি Ransomware নিয়েই কথা বলব। Ransomware কি? Ransom অর্থ মুক্তিপণ। আরে ware হল ম্যালওয়ার এর ware, এর থেকেই বুঝাই যায় যে যে ম্যালওয়ার কোন কিছুর জন্য মুক্তিপণ চায় সেইগুলাই Ra
Windows 7 Corporate Edition 2017 (32-bit -64-bit)

Windows 7 Corporate Edition 2017 (32-bit -64-bit)

উইন্ডোস 7, কম্পিউটিং
প্রথমেই সবাইকে সালাম। আপনাদের সামনে আবারো হাজির হলাম আমার ডেভেলপ করা সম্পূর্ণ নতুন একটি উইন্ডোজ নিয়ে। এটির নাম : উইন্ডোজ সেভেন কর্পোরেট এডিশন. বর্ণনা : উইন্ডোজ সেভেন কর্পোরট একটি সম্পূর্ণ নতুন ডেভেলপ করা সেভেনের ভার্সন। এটি উইন্ডোজ সেভেনকে আরও স্টাইলিশ, দ্রুত গতির, প্রফেশনাল এবং গেমারদের জন্য উপযুক্ত করে তৈরি করা হয়েছে। এটি আপনাকে উইন্ডোজ সেভেন থেকে কয়কেগুণ বেশি ভালো পারফরমেন্স দেবে। সম্পূর্ণ নতুন ভাবে সাজানো এই উইন্ডোজে রয়েছে : ০১. গেমারদের এবং প্রফেশনালদের প্রয়োজনীয় সকল রানটাইমস এবং প্লাগিন্স। ০২. সম্পূর্ণ  অটোমেটিক ভাবে ইন্সটল করাসহ প্রি-কনফিগারট সেটিংস। ০৩. সম্পূর্ণ এক্টিভেটেট ভার্সন (প্রি-এক্টিভেটেড)। ০৪. নতুন মেট্রো থিমস এবং এইচ,ডি ওয়ালপেপার। ০৫. নতুন মেট্রো স্ক্রিন সেভার। ০৬. ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ১১. ০৭. ডেস্কটপ পাওয়ার মেনু সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় কনটেস্ট ম
আপনার প্রিয় কম্পিউটারকে ক্ষতিকর ভাইরাস ও হ্যাকারদের থেকে রক্ষা করার সেরা কিছু টিপস…?

আপনার প্রিয় কম্পিউটারকে ক্ষতিকর ভাইরাস ও হ্যাকারদের থেকে রক্ষা করার সেরা কিছু টিপস…?

কম্পিউটিং, জেনে নিন, টিপস এন্ড ট্রিকস
মোটামুটি আমারা সবাই কম্পিউটার ব্যবহার করি। প্রয়োজনে কেউ ল্যাপটপ আবার কেউ ডেক্সটপ কম্পিউটার চালায়। বর্তমানে কম্পিউটারের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হল ক্ষতিকর ভাইরাস। আর দ্বিতীয় অবস্থানে আছে হ্যাকার। একটু অসাবধানতার কারনে কখন আপনার পিসিতে ভাইরাস ধুকে পরবে বা হ্যাক হয়ে যাবে তা আপনি ঠিকও পাবেন না। আপনার পিসিকে হ্যাক করার সহজ একটি উপায়, ফেসবুকে কেউ আপনাকে সুন্দর একটি ম্যাসেজ দিবে আর বলবে এই লিংকে গেলে আরও বিস্তারিত জানতে পারবেন। আপনি যখনি ঐ লিংকে ক্লিক করবেন তখনি আপনার পিসির নিয়ন্ত্রণ চলে যাবে সেই হ্যাকারের হাতে। কিছু দিন একজন বিশিষ্ট হ্যাকারের একটি ইন্টারভিউ পড়ছিলাম। তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, কিভাবে নিজের পিসিকে ক্ষতিকর ভাইরাস ও হ্যাকারদের কবল থেকে রক্ষা করা যায়? সেদিন তিনি কিছু সাজেশন দিয়েছিল আমাদের, চলুন শোনা যাক- ১। অপারেটিং সিস্টেম- আমরা এক একজন এক এক ধরনের অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার ক
জেনে নিনি কম্পিউটার এর ৩২ বিট এবং ৬৪ বিট এর পার্থক্য কি ?

জেনে নিনি কম্পিউটার এর ৩২ বিট এবং ৬৪ বিট এর পার্থক্য কি ?

কম্পিউটিং
কম্পিউটার যারা ব্যবহার করেন তারা নিশ্চয় 32 bit, 64 bit এর নাম শুনেছেন। 32 bit আর 64 bit এর জন্য আলাদা আলাদা প্রসেসর, অপারেটিং সিস্টেম, সফটওয়ার, আর ড্রাইভার আছে। তবে নতুনদের মধ্যে অনেকেই জানেন না এই ৩২ বিট আর ৬৪ বিট (X86 ও X64) কি বা Difference between 64bit and 32bit। এদের মধ্যে পার্থক্য কি, কি জন্য ব্যবহার করা হয় বা নিজের কম্পিউটারটি কত বিটের তা কিভাবে চেক করবেন তাও অনেকের অজানা। এটি নিয়েই আমার পোষ্টটি লেখা। এখানে প্রশ্নগুলোর উত্তর দেয়ার চেস্টা করছি। ৩২ বিট আর ৬৪ বিট এ পার্থক্য কিঃ ১। ৩২ বিট এর চেয়ে ৬৪ বিটে উইন্ডোজের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশি, বিশেষ করে Kernel Patch Protection অনেক বেশি শক্তিশালী হয় ৬৪ বিটে। Kernel হল প্রসেসর, হার্ডওযার, ডিভাইস ড্রাইভার এর সাথে অন্যান্য সফটওয়ারের সমন্বয় রক্ষা করে চলার একটি পদ্ধতি যার উপর ভিত্তি করে অপারেটিংস সিস্টেম তৈরি হয়। একেক অপারেটিং সি
কম্পিউটার রক্ষণাবেক্ষণ এবং মেরামত !

কম্পিউটার রক্ষণাবেক্ষণ এবং মেরামত !

কম্পিউটিং
কেমন আছেন সবাই।আশা করি ভাল আছেন।আপনাদের দোয়ায় শুরু করছি নতুন পর্বের চেইন পোস্ট। কম্পিউটার আমাদের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি মাধ্যম।আর তাই এর যত্ন নেওয়াও আমদের জন্য খুবই প্রয়োজন। আজ এ ব্যাপারে সাধারণ আলোচনা করব। কম্পিউটার রক্ষণাবেক্ষণ আসলে কী?   দিন দিন এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের এই বিশ্ব। আর এই এগিয়ে যাওয়ার পথে যে জিনিসটি আমাদের সবচেয়ে বেশি সাহায্য করছে তা হল কম্পিউটার।বৃক্ষের যেমন নিয়মিত পরিচর্যা না করলে ভাল ফল আশা করা যায় না। কম্পিউটারকে যদি পরিচর্যা না করেন, এটির প্রতি যদি যত্নবান না হন, তবে এর থেকেও ভাল ফলাফল আপনি আশা করতে পারবেন না। কম্পিউটারের মাধ্যমে অধিক পরিমাণ সার্ভিস বা সেবা পাওয়ার জন্য অবশ্যই এটির যত্ন নিতে হবে।   “মূলত কমিপউটারের বিভিন্ন অংশের সংযোগ দেওয়া, কম্পিউটারের সঠিক যত্ন নেওয়া, নির্দিষ্ট সময় পর পর বিভিন্ন যন্ত্রাংশ পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে প্রয
এক ক্লিকে রিফ্রেশ করুন আপনার সব ড্রাইভকে ।

এক ক্লিকে রিফ্রেশ করুন আপনার সব ড্রাইভকে ।

কম্পিউটিং
এক ক্লিকে রিফ্রেশ করুন আপনার সব ড্রাইভকে ।হা, আজ আপনাদের তেমনই একটা সফটওয়্যার দেব। মাত্র ৪০০ কেবি। হয়তো অনেকের কাছেই আছে, কিন্তু যাদের কাছে নেই, পোষ্টটি তাদের জন্য। নিচের লিঙ্ক থেকে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে extract করেন। refresh য়ে ডাবল ক্লিক করেন। দেখেন চমক, Download  এখান থেকে ।
মাদারবোর্ড কিনতে যা জানতে হয় ……….

মাদারবোর্ড কিনতে যা জানতে হয় ……….

এইচটিএমএল.5, কম্পিউটিং
কম্পিউটার কিনতে হলে আপনাকে প্রসেসরের পরে বিবেচনা করতে হবে কি মাদারবোর্ড কিনবেন। নিম্নলিখিত বিষয়গুলো আপনাকেজানা থাকলে আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন কোন মাদারবোর্ড আপনার দরকার। তো চলুন জেনে নেই: ১. সবসময় সর্বশেষ যে মাদারবোর্ডটি বাজারে এসেছে সেটি সংগ্রহ করার চেষ্টা করবেন। ২. সর্বশেষ মাদারবোর্ড সংগ্রহ করলেই হবে না আপনাকে দেখতে হবে আপনার এই মাদারবোর্ডটি কোন কোন স্পিডের প্রসেসরকে সাপোর্ট করে। নতুনদের ক্ষেত্রে চেষ্টা থাকা উচি ৎ বাজারের সর্বশেষ মডেলের প্রসেসর কেনা। সেক্ষেত্রে আপনার মাদারবোর্ড উক্ত প্রসেসরকে সাপোর্ট করে কিনা সেটি জেনে নিন। সেটি না হলে উপযুক্ত মাদারবোর্ড বেছে নিন। যারা ইতিমধ্যে কমপিউটার ব্যবহার করছেন এবং কোন কারনে বর্তমানমাদারবোর্ডটি নষ্ট হয়ে গেছে তারা তাদের প্রসেসরের সাথে মিল রেখে নতুন মাদারবোর্ড সংগ্রহ করবেন। ৩. প্রসেসর ও মাদারবোর্ডের বাস স্পিড কত এবং এগুলোর মধ্যে সাম Ä স্
কম্পিউটার ডিলিট হয়া সব ফাইল গুলো ফিরিয়ে আনুন এক ক্লিক !

কম্পিউটার ডিলিট হয়া সব ফাইল গুলো ফিরিয়ে আনুন এক ক্লিক !

কম্পিউটিং
আজকে খুব ভাল একটা কাজের সফটওয়্যার শেয়ার করব যেটা হল Recuva এই সফটওয়্যার যার দ্বারা সহজেই ডিলিট হওয়া ফাইল পুনরুদ্ধার করা যায় ।ভাইরাসের কারনে ডিলিট হওয়া ফাইলও আপনি উদ্ধার করতে পারেন Recuva সফটওয়্যার দিয়ে এই সফটওয়্যার এর সুবিধা হল > ইচ্ছামত MP3.Mp4,Pdf আলাদাভাবে পুনরুদ্ধার করা যায় >ফাইল এর Quality দেখা যায় >Deep Scan এনাবল করে অনেক আগের ফাইল পুনরুদ্ধার করা যায় রিকুভা অত্যন্ত শক্তিশালী একটি রিকভারি সফটওয়্যার। যা খুব সহজে আপনার মুছে ফেলা বা হারিয়ে যাওয়া গান, ভিডিও, ফাইল, অফিস ডকুমেন্ট, ই-মেইল, ছবি ইত্যাদি খুঁজে বের করতে সাহায্য করবে। এটি FAT12, FAT16, FAT32, exFAT, NTFS, NTFS5 ফাইল সিস্টেমকে সাপোর্ট করে। এর ব্যবহার পদ্ধতিও খুব সহজ এবং সাবলীল। যে কারো পক্ষে এটি ব্যবহার করা সম্ভব।   যে ফাইল পুনরুদ্ধার করতে চান সেটার ওপর রাইট বাটন ক্লিক করে Recover Highlited অপশন এ ক্লিক কর